অক্টোবর ২২, ২০১৯ ২:০২ পূর্বাহ্ণ
সর্বশেষ
সাংবাদিক হলে দখল ছাড়, কলম ধর, ভবিষ্যৎ উজ্জল কর

সাংবাদিক হলে দখল ছাড়, কলম ধর, ভবিষ্যৎ উজ্জল কর

জাহাঙ্গীর আলম. আমেরিকায় নারী সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য গ্যাসিজ এ্যাওয়ার্ড পেলেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত তাসমিন মাহফুজ। নিউইয়র্ক সিটির হিল্টন হোটেল অ্যালায়েন্স ফর উইমেন ইন সিভিয়ার উদ্যেগে এ অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। চট্রগ্রামের আবুল ওয়াহিদ মাহফুজের কন্যা তাসমিন নিজের আর দেশের জন্য এমন গৌরব বয়ে আনবে তা কিন্তু সেই ১৯৭১ সালেই এদেশের মানুষ বিশ্ববাসীকে রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মাধ্যমে বুঝিয়ে দিয়েছিল। বাঙ্গালী পাারে সব অসম্ভবকে সম্ভব করতে। সাংবাদিককতা মানেই কলম সৈনিক। যার প্রতিটি অক্ষর লিখায় থাকবে তথ্য, সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা তা বলার জন্য বলা না, সাংবাদিকরা জাতির বিবেক। ইতিহাস বলে- সাংবাদিক কোন ব্যাক্তির না, দলের না, দেশের না সাংবাদিক সবার। যাদের কলমের কালিতে থাকবে সত্য, যা চীর দিনই সত্য। সম্পতি সাংবাদিকতার নামে যা হচ্ছে তা নিতান্তই কিছু লোভী মানুষের দখল বানিজ্য। অবাক লাগে আগে পত্রিকার পাতায় খবর পেতাম খাল দখল, রাস্তা দখল, হাট-বাজারের টয়লেট দখল আর এখন দেখি জাতির বিবেকদের সংঘটন প্রেস ক্লাব দখল। কি করা সম্মান বাঁচাতে, ক্ষমতা আর হিংসাত্বক কার্যকলাপ দেখিয়ে যারা দখল বানিজ্য করছে তাদের কারনে সম্মানীত সাংবাদিকবৃন্দ হয়ত বিদ্রুপ পরিস্থিতিতে নিজেদের আড়ালে রাখবে। কিন্তু সাংবাদিকতার উপর সাধারন মানুষের আস্থা বিশ্বাস চলে যাবে। তারা কাকে বিশ্বাস করবে। সেই উপজেলা পর্যায় থেকে শুরু করে জেলা, এমনকি জাতীয় প্রেসক্লাবের একই অবস্থা। কিছু উশৃঙ্খল লোভী হিংস্র ব্যাক্তি নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সাংবাদিক সমাজকে কলংকিত করার জন্য সন্ত্রাসীদের নিয়ে পেশী শক্তির বলে দখলে নিচ্ছে প্রেসক্লাব। সেখানে অন্তত মানুষ স্বাধীন ভাবে একটু মত প্রকাশ করতে পারত যা আজ আর সম্ভব নয়। কিন্তু যারা এই দখল বানিজ্য করছে তারাতো অবশ্যই জানে বাঙ্গালীর গৌরব গাথা ইতিহাস তারাই তো এদেশেরই সন্তান তারাইতো পারে তাসমিন এর মত সাংবাদিকতায় অবদান রাখতে নিজের আর দেশের সম্মান উজ্জল করতে। এগুলো করলে ইতিহাস ক্ষমা করবে না, ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করেনি। একটু চেষ্টা করলেই সব সম্ভব, আজ যারা প্রেসক্লাবের মত পবিত্র জায়গা দখল করে নিজ আর দেশের বদনাম করছে তাদের কেউ ভাল বলেনা বলবে না। কিছু দিন পর তারা হারিয়ে যাবে, কেউ তাদের স্মরন করবে না। আমি তৃনমূল টঙ্গীবাড়ী উপজেলা প্রেসক্লাব, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রেসক্লব, ঢাকার জাতীয় প্রেসক্লাব সব জায়গায় একই অবস্থার কথা পত্রিকা সহ বিভিন্ন মাধ্যমে জানলাম। কিছু উশৃঙ্খল ব্যাক্তি হলুদ সাংবাদিকতার আদলে নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে রাজনৈতিক ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিজের ফায়দা হাসিলের জন্য প্রেসক্লাবকে দখল করে সাংবাদিকতার নামে অবৈধ বানিজ্য করছে। মিথ্যা মামলা হামলা করছে, যা কাম্য নয়। নিজের উজ্জল ভবিষ্যৎ আর সাংবাদিকতাকে বাঁচিয়ে রাখতে দখল ছাড়তে হবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে কলম ধরতে হবে। নিজেদের বদনাম নিজেরা করলে অপর ব্যাক্তি হাসবে এটাই স্বাভাবিক, তাই দেখে আনন্দিত হওয়ার কিছু নাই। নিজেদের সহানূভুতিশীল হতে হবে একটু ছাড় দিলেই সকল সমস্যার সমাধান হবে। নির্বাচন দিন আপনার সহযোগী বন্ধুরাই আপনাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে যদি আপনি নেতৃত্ব দেওয়ার মতো লোক হন। চেষ্টা করুন কোন চেষ্টাই বৃথা যায়নি। ২০০৬ সালের আমি টঙ্গীবাড়ী উপজেলা প্রেসক্লাবের সদস্য ছিলাম। সে সময় স্বনামধন্য দৈনিক সংবাদ পত্রিকায় টঙ্গীবাড়ী উপজেলা থেকে আমার এক সহকর্মী সংবাদ পাঠাত। তার বাড়ী উপজেলা সদরেই। বিভিন্ন কারনে নিজেকে ক্ষমতাধর ভেবে পত্রিকার আইডি কার্ড এর জন্য খুব তদবির করতে থাকে পত্রিকা অফিসে পরে শুনলাম এবং দেখলাম তাকে এক সঙ্গে দুই বছর মেয়াদী কার্ড দিয়েছে। বেচারা কার্ড পেয়ে টানা দু’বছর সভাপতি হিসেবে প্রেসক্লাবের দখলে থাকলেন যদিও প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রে প্রেসক্লাবের কমিটির মেয়াদ ছিল এক বছর। দুই বছর পর জানলাম দৈনিক সংবাদ কর্তৃপক্ষ উক্ত ব্যাক্তি সম্পর্কে অবগত হইয়া তাহার নিয়োগ বাতিল করেছে সম্পতি মুন্সীগঞ্জে ও এমন এক খবর শুনছি দৈনিক সমকাল কর্তৃপক্ষ তাদের মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধির সংবাদ আর ছাপছে না। তাই শেষ পরিনতির কথা ভেবে সতর্ক হলেই ভাল হয়, তাই না। নিজেকে পন্ডিত ভাবলে হবে না অন্যেরা কিন্তু ফালতু ভাবছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top